রাস্তায় ফেলে শত শত পথচারীর সামনে নারীকে পেটালো ব্যবসায়ী

 নারীকে পেটালো ব্যবসায়ী সিলেট নগরের আম্বরখানা এলাকায় রাস্তায় ফেলে শত শত পথচারীর সামনে নারীকে পেটালেন এক ব্যবসায়ী। মঙ্গলবার দুপুরে দিকে আম্বরখানার সেন্ট্রাল প্লাজার সামনে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে উভয়কে থানায় নিয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সিলেট-বিমানবন্দর সড়কের আম্বরখানা সরকারি কলোনি সংলগ্ন তপু টেইলার্সে মালিক তপু। তপু টেইলার্সে প্রায় তিন মাস ধরে নাজমা আক্তার (৩০) নামের এক নারী কাজ করতেন। কিন্তু গত তিনদিন তিনি দোকানে আসেননি। নাজমা মঙ্গলবার দুপুরে দোকানে এলে আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমদ শেফুলের ভাই তপু গালিগালাজ করেন। তখন নাজমা রাগ করে বাসায় চলে যাওয়ার জন্য দোকান থেকে বের হন।

এ সময় তপু তাকে ওই স্থান থেকে ধাওয়া করে আম্বরখানা সেন্ট্রাল প্লাজার সামনে ঝাপটে ধরে রাস্তায় ফেলে মারধর শুরু করেন। এ সময় আশপাশের লোকজন ‘চোর চোর’ চিৎকার করে, তখন তপু বলেন, ‘সে চোর নয়, আমার দোকানের কর্মচারী। অর্ডারের কাজ নিয়ে ঠিকমতো কাজ না করায় আমি তাকে শাসাচ্ছি।’

পরে আম্বরখানা পয়েন্টে থাকা পুলিশের হাবিলদার নাজিম উদ্দিনসহ কয়েকজন পুলিশ এসে উভয়কে নিয়ে যায়। নাজমা বলেন, ‘আমার বেতনের টাকা নিয়ে তপু আমাকে তিন মাস যাবত ঘুরিয়েছে। আজ আমি বেতনের টাকা নিতে এলে সে আমাকে গালিগালাজ করে। এক পর্যায়ে আমি বাসায় ফিরে যেতে চাইলে আমার পিছু নেয়। পিছু নিচ্ছে দেখে আমি দৌঁড় শুরু করি। এরপর আমাকে রাস্তায় ফেলে তপু মারধর করে।’ নাজমার বাসা নগরের শেখঘাট বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে হাবিলদার নাজিম উদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এক যুবক একজন নারীকে মারধর করেছে। পরে তাদের ধরে এনে আম্বরখানা ফাঁড়িতে নিয়ে রাখা হয়।

এ ব্যাপারে বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গৌছুল হোসেন বলেন, এঘটনায় কেউ অভিযোগ নিয়ে থানায় আসেনি। তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেননি বলে জানান।

তবে স্থানীয়রা জনান, ব্যবসায়ী তপু আওয়ামী লীগ নেতা শেফুলের ভাই। আর ওই নারী তপুর টেইলার্সের দোকানে কাজ করেন। তপু ও নারীকে ধরে আম্বরখানা ফাঁড়িতে নিয়ে যাওয়ার পর তাদের দু’জনের মধ্যে সমঝোতা হয়ে যায়। পরে সেখান থেকে শেফুল তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে যান।


লেখাটি পছন্দ হইলে শেয়ার করতে ভুলবেন না।
নিয়মিত সুন্দর সুন্দর টিপস পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ এ অ্যাক্টিভ থাকুন।